ব্যাংক নাকি বিসিএস?

 চোখ বন্ধ করে বলতে পারেন ব্যাংক ! বাংলাদেশে চাকরির বাজার ও বেকারত্বের অভিশাপের জ্বালায় অতিষ্ঠতার প্রেক্ষাপটে বলা যায় বিসিএস প্রস্তুতি একটা বিলাসিতা ছাড়া কিছুই নয় ! কেননা একটা বিসিএস শেষ হতে ৩-৩.৫বছর লাগে ! আর মাত্র ৪৫০ জেনারেল ক্যাডার পোস্টের জন্য লড়ে ৪৫০ হাজার জন ! মানে প্রতি পোস্টের জন্য ১ হাজার ( টেকনিক্যাল বাদে) ॥ মরার উপর খাড়ার ঘা দেশের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের শীর্ষ সাবজেক্টগুলোর শীর্ষ স্থান অধিকারীরাও এই প্রতিযোগিতায় বানের পানির মতো ঢুকে পডছে , ফলে মধ্যম কোয়ালিটির স্টুডেন্টরা আগেই বাদ ! ৩ বছর পর ভাডে মা ভবানি! এই ৩ বছর বেকারত্বের অভিশাপে অভিশপ্ত যুবকের চারপাশটা এতটায় অন্ধকার হয়ে আসে যে চোখ থাকতে অন্ধ, কান থাকতে বোবা হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করতে হয় ! হয়ত ৪ বছর পর পর্বতের মুষিক প্রসবের মতো হয়ত একটা নন ক্যাডার জোটে ! আর তিন ধাপের পরীক্ষার যেকোনটাতে

পা পিছলে গেলে চোখে সরষে ফুল দেখা ছাড়া কিছু দেখা যায় না ! সুতরাং বলা যায় বিসিএস একটা নেশা, বৃটিশ আমলে ইয়ং বেঙ্গলরা যে নেশায় মত্ত হয়ে অভিশপ্ত হয়েছিল বর্তমানে বিসিএস সেরকমই রকমই একটা নেশা; জীবন- যৌবন উভয়কেই কুঁড়ে কুঁড়ে খেয়ে নিচ্ছি! তবুও যুবকরা কালের যাত্রায় অনিশ্চিতকেই বেছে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে ! অথচ ঐ বিসিএস পাগলরাই যদি ব্যাংক প্রস্তুতিতে মাত্র ১টা বছর সময় দেয়, তাহলে বছর শেষে নিজেকে ব্যাংক কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিতে পারে !
বিসিএসকে কর্মসংস্হানের একমাত্র পথ হিসেবে বেছে নেওয়া সবচেয়ে বড় বোকামি! বিসিএস প্রতি প্যাশন থাকতেই পারে তবে অতিরিক্ত প্যাশন ভালো নয় ! তাই উভয় প্রস্তুতির সাথে নিজেকে তৈরি করতে হবে !


ব্যাংক ও বিসিএস প্রস্তুতি খুব বেশি আলাদা নয় ! তবুও বুদ্ধির অভাবে, সমন্বয়ের অভাবে , ব্যাংকের দাঁত ভাঙ্গা গণিত ও ইংরেজির ভয়ে অনেক বেকার বিসিএস নিয়েই পড়ে থেকে জীবনের সুবর্ণ সময়গুলো নষ্ট করে !
বিসিএস ও ব্যাংক প্রস্তুতিতে পড়া শুধু এক জায়গায় আলাদা সেটা হলো বিসিএস প্রিলিতে শুধু আলাদা করে ইংরেজি সাহিত্য ও নৈতিকতা,মূল্যোবাধ, সুশাসন আলাদা করে পড়তে হয় যা ব্যাংকে কাজে লাগে না , আর ব্যাংকের গণিতগুলো জাস্ট ইংরেজিতে অনুশীলন করতে হয়, বিসিএসের সাধারণ বিজ্ঞান ব্যাংকে লাগে না ! বাকি সব পড়া এক!কিভাবে এক সেটা আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছি 😜
✍️বাংলা, ইংরেজি ,গণিত, কম্পিউটার বিষয়ে কেউ ডিপ থেকে ডিপে পড়ে অর্থাৎ এই বিষয়গুলোতে ভালো দক্ষতা থাকলে ব্যাংক বিসিএস উভয় পরীক্ষা পানির মতো মনে হবে ! যে ব্যাংকের কঠিন গণিত গুলো সলভ করতে পারে তার কাছে বিসিএস প্রিলির গণিতে পানির মতো মনে হবে ! লিখিতের সময় ৯-১০ গণিত ও উচ্চতর গণিত বই থেকে কয়েকটা চ্যাপ্টার দেখলেই পাগার পার ! বিসিওস ইংরেজিও এখন ব্যাংকের মতো ভোকাবুলারি বেসড হয়েছে, ব্যাংকে আলাদা করে জাস্ট জটিল- কঠিন Analogy টা আলাদা করে দেখতে হয় !
✍️সাধারণ জ্ঞান ( বাংলাদেশ , আন্তর্জাতিক , ভূগোল, সাম্প্রতিক ) : প্রিলিতে এগুলো বিসিএস ও ব্যাংক এক পড়া! ব্যাংকে সাম্প্রতিক একটু বেশি আসে বাদ বাকি পড়া এক !
✍️লিখিততে অনুবাদ উভয় পরীক্ষার জন্যই গুরুত্বপূর্ণ , অনুশীলন করে দক্ষ হলে উভয় পরীক্ষা পানির মতো মনে হবে !
✍️ বিসিএস লিখিততে বাংলাদেশ বিষয়াবলী ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী প্রিলির পাশের পর শুরু করলেই কাভার করা যায়, এগুলোতে সবাই লিখে আসে তাই ক্যাডার নির্ধারণে বড় ফ্যাক্টর হয় না ! এগুলোর কিছু গুরুত্বপূর্ণ টপিক + সমসাময়িক টপিক ( পেপার পত্রিকা পড়ে অর্জিত জ্ঞান) + ব্যাংকিং, অর্থনীতি বিষয়ক কিছু টপিকস ফোকাস রাইটিং হিসেবে ব্যাংকে আসে , যা একটু সমন্বয় করে পড়লেই কেল্লা পতে !
✍️বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলী ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলীর মতো ব্যাংকেও ফোকাস রাইটিং কখনো পদে পাবার জন্য বড় বাধা হয় না , বুদ্ধি খাটিয়ে লিখে আসলেই হয় !
✍️ ব্যাংকে পদ পাবেন কিনা সেটা নির্ভর করবে আপনার লিখিততে ৫টা অঙ্কের মধ্যে কয়টা হয়েছে তার উপর ! আর বিসিএস অনেক ফ্যাক্টর কাজ করে !
✍️যে ছেলেটা ব্যাংকের গণিত , ইংরেজি, কম্পিউটার, অনুবাদ ঠাশ ঠাশ করে উত্তর দিতে পারে তার কাছে বিসিএসের এই বিষয়গুলো পানির মতো মনে হবে ! অধিকন্তু এগুলোই বিসিএস ক্যাডার প্রাপ্তিতে প্রাইম ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করে !
.
এগুলো হলো কিতাবী কথা😜; ব্যাংকের চাকরিটা যেমন স্মার্ট তেমনি প্রস্তুতিটাও স্মার্ট ! ব্যাংকে প্রস্তুতি অল্প সময়েই সম্ভব যেখানে বিসিএস গাদা গাদা সিলেবাস ও বই পড়তে হয় ! কেউ যদি মন দিয়ে পড়ে তাহলে ১বছরেই ব্যাংকার হতে পারবে! কিন্তু ১ টা বিসিএস (৪৫০ টা জেনারেল আর কটা নিজের সাবজেক্টের পদ ) দিতে তিন বছর লাগবে আর ঐ তিন বছরে ক্যাশ অফিসার, অফিসার, সিনিয়র অফিসার , সহকারি পরিচালক , কম্পিউটার অপারেটর , এক্সিউটিভ অফিসার , ট্রেলার পদে ৮-১০ হাজার পদের জন্য লড়তে পারবে (সরকারি সকল ব্যাংকে টেকনিক্যাল পোস্ট বাদে সব পোস্টে সবার সমান সুযোগ ! )| সাথে রয়েছে ব্যাংকারদের আর্থিক স্বচ্ছলতা !
এখন বুঝুন কেন ব্যাংকের প্রস্তুতি ভালো ! ব্যাংকের প্রস্তুতি নিন দ্রুত বেকারত্বের অভিশাপ থেকে বেরিয়ে আসুন !
সবার জন্য শুভ কামনা !

0 Comments